Post Image
  • ImgJun 26-2024
  • Img

মোটরসাইকেলের ডিজিটাল নাম্বার প্লেট: সংগ্রহের পদ্ধতি ও সুবিধা


যানবাহনে নাম্বার প্লেট ব্যবহার করা সরকার নির্ধারিত আইন। যা বাস্তবায়নে কাজ করে বিআরটিএ, বাংলাদেশ পুলিশসহ বেশ কিছু আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। প্রযুক্তির উন্নতি সাধনের সাথে সাথে বিআরটিএ নাম্বার প্লেট ডিজিটাল করার সিদ্ধান্ত নেয়। ধাপে ধাপে পুরাতন রেজিস্ট্রেশনকৃত যানবাহন গুলোতে এবং বর্তমানে সকল নতুন রেজিস্ট্রেশনকৃত যানবাহনে ইলেকট্রিক নাম্বার প্লেট লাগানো হচ্ছে।

মোটরসাইকেলগুলোকেও আনা হচ্ছে ডিজিটাল ও ইলেকট্রিক চিপ যুক্ত নাম্বার প্লেটের আওতায়। তাই আজকের ব্লগে আমরা জানবো কিভাবে মোটরসাইকেলের ডিজিটাল নাম্বার প্লেট সংগ্রহ করবেন।

মোটরসাইকেলের ডিজিটাল নাম্বার প্লেট কী?

মোটরসাইকেলের ডিজিটাল নাম্বার প্লেট সংগ্রহ করার আগে আপনাকে জানতে হবে ডিজিটাল নাম্বার প্লেট কী? মোটরসাইকেলের ডিজিটাল নাম্বার প্লেট দিয়ে মূলত রাস্তায় চলমান সব মোটরসাইকেলকে সরকারিভাবে রেজিস্ট্রেশন করিয়ে বৈধতা দেয়া এবং মোটরসাইকেল সম্পর্কিত জরুরি সব তথ্য সরকারিভাবে লিপিবদ্ধ করে রাখা হয়। ডিজিটাল নাম্বার প্লেট আসার পর থেকে এই পুরো ব্যাপারটার সাথে আরও অনেক রকম বাড়তি সুবিধা আর সম্ভাবনা যুক্ত হয়েছে। এই নাম্বার প্লেটের সাহায্যে গাড়ি কিংবা মোটরসাইকেলগুলো ট্র্যাক করা যায় এবং ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণ করাও আগের চেয়ে সহজ হয়ে যায়। ডিজিটাল নাম্বার প্লেটগুলোতে নানা রকম দক্ষ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন- আরএফআইডি (রেট্রো ফ্রিকোয়েন্সি আইডেন্টিফিকেশন/Retro reflective), ক্যামেরা এবং ওয়্যারলেস কমিউনিকেশন ডিভাইস, যাতে প্রত্যেকটি যানবাহন সনাক্ত করার পাশাপাশি ডাটাবেইজ থেকে উক্ত বাহন সম্পর্কে পুরো তথ্য একসাথে পাওয়া যায়। এই নতুন ধরনের মোটরসাইকেল নাম্বার প্লেটকে ইন্টেলিজেন্ট নাম্বার প্লেট কিংবা ইলেক্ট্রনিক নাম্বার প্লেট বা ডিজিটাল নাম্বার প্লেট নামেও অনেকে জানে।

ডিজিটাল নাম্বার প্লেটের সুবিধা

  • নিরাপত্তা: মোটরসাইকেল চুরি রোধ এবং অবস্থান সনাক্ত করতে সক্ষম।
  • ট্র্যাকিং: ট্র্যাফিক পরিস্থিতি এবং যানবাহনের রিয়েল-টাইম লোকেশন জানা সম্ভব।
  • টোল পেমেন্ট: ডিজিটালভাবে টোল পরিশোধ করা যাবে।
  • ডিজিটাল ডকুমেন্ট: ইনস্যুরেন্স কার্ড বা অন্যান্য কাগজপত্র বহন করার প্রয়োজন নেই।
  • আইন প্রয়োগ: ট্র্যাফিক আইন লঙ্ঘন দ্রুত সনাক্ত এবং ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব।

ডিজিটাল নাম্বার প্লেটের আবেদনের জন্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

  • নির্ধারিত ফি পরিশোধ করার রসিদ,
  • সত্যায়িত করা মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট এর ফটোকপি,
  • ফিটনেস সার্টিফিকেটের সত্যায়িত করা ফটোকপি,
  • ট্যাক্স টোকেন কাগজপত্রের সত্যায়িত করা ফটোকপি।

ডিজিটাল নাম্বার প্লেটের জন্যে যেভাবে আবেদন করবেন

প্রথমে বিআরটিএ থেকে একটি ডিপোজিট স্লিপ বা এসেসমেন্ট স্লিপ সংগ্রহ করে সেটি ব্লু-বুক অনুযায়ী পূরণ করুন। তারপর বিআরটিএ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় ফি ও চার্জের পরিমাণ জেনে নিয়ে এসেসমেন্ট স্লিপটি সাইন ও সীল করিয়ে নিন। নির্ধারিত ব্যাংকে সেই টাকা জমা দিন এবং একটি চালু থাকা মোবাইল নাম্বার দিন। টাকা ডিপোজিট হওয়ার পর ব্যাংক থেকে আপনাকে ২ কপি প্রিন্ট করা টাকার রসিদ দেয়া হবে। টাকা জমা দেয়ার কয়েক দিনের মধ্যে আপনার মোবাইল নাম্বারে নাম্বার প্লেট রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত বায়োমেট্রিকস দেয়ার জন্য একটি এসএমএস পাঠানো হবে।

বর্তমানে মোটরযান রেজিস্ট্রেশন করার পর রিট্রোরিফ্লেক্টিভ নাম্বার প্লেট ও ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট তৈরির পর্যায় জানতে আবেদনকারীকে সংশ্লিষ্ট অফিসে আসতে হয়। এতে তার সময় ও যাতায়াতের খরচ নষ্ট হয়। সমস্যা সমাধানে মোবাইল মেসেজের মাধ্যমে রেট্রোরিফ্লেক্টিভ নাম্বার প্লেট ও ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট তৈরির অবস্থা জানার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর ফলে, আবেদনকারী ঘরে বসে মোবাইল মেসেজের মাধ্যমে তার মোটর গাড়ির রেট্রোরিফ্লেক্টিভ নাম্বার প্লেট এবং ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট তৈরির অবস্থা জানতে পারবেন।

সেবা গ্রহণের প্রক্রিয়া:

  • রেট্রোরিফ্লেক্টিভ নাম্বার প্লেট: মোবাইল মেসেজ অপশনে যান এবং "NP" টাইপ করুন এবং 26969 নাম্বারে বার্তা পাঠান। এখানে উল্লেখ্য যে, মোটরযানের মালিকের নিজের মোবাইল নাম্বার অর্থাৎ ব্যাংকের টাকা জমা দেওয়ার সময় যে মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়েছে সে মোবাইল থেকে মেসেজ পাঠাতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ, NP টাইপ করুন এবং 26969 নাম্বারে পাঠান। ফিরতি বার্তাটি আপনার রিট্রোরিফ্লেক্টিভ নাম্বার প্লেট প্রস্তুতির বর্তমান অবস্থা বর্ণনা করবে।

  • ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট: মোবাইল মেসেজ অপশনে যান এবং "NP<space>DRC" টাইপ করুন এবং মেসেজটি পাঠান 26969 নাম্বারে। এখানে উল্লেখ্য যে, মোটরযানের মালিকের নিজের মোবাইল নাম্বার অর্থাৎ ব্যাংকের টাকা জমা দেওয়ার সময় যে মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়েছে সে মোবাইল থেকে মেসেজ পাঠাতে হবে

মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন ও ডিজিটাল নাম্বার প্লেটের খরচ

বাইকের সিসি এবং ওজনের উপর নির্ভর করে রেজিস্ট্রেশন ও নাম্বার প্লেটের মোট খরচ ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। বেসিকভাবে যেকোনো বাইকের জন্য ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট, আরএফআইডি ডিজিটাল নাম্বারপ্লেট এবং ইনস্পেকশন ফি একই থাকে। শুধুমাত্র সিসির পরিমানের উপর ভিত্তি করে রেজিস্ট্রেশন ফি ভিন্ন, আর ওজনের উপর নির্ভর করে রোড ট্যাক্সের পরিমাণ ভিন্ন।

মোটরসাইকেলের ধরন

২ বছরের রেজিস্ট্রেশন ফি

১০ বছরের রেজিস্ট্রেশন ফি

৯০ কেজির নিচে / ৮০-৯৯ সিসি

৯,২৯১ টাকা

৯,২৯১ টাকা

৯০ কেজির উপরে / ১০০ সিসি

১০,৪৪১ টাকা

১৯,৪৪১ টাকা

১০১-১৫৯ সিসি

১১,৭৬৪ টাকা

২০,৭৬৪ টাকা

অন্যান্য খরচ:

  • ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট: ৫৫৫ টাকা
  • আরএফআইডি ডিজিটাল নাম্বার প্লেট: ২২৬০ টাকা
  • ইনস্পেকশন ফি: ৫৭৫ টাকা
  • রোড ট্যাক্স: ৪৬০০ টাকা (ওজন <৯০ কেজি) এবং ৯২০০ টাকা (ওজন >৯০ কেজি)

বিঃদ্রঃ- সকল ফি-এর উপর ১৫% ভ্যাট যুক্ত হবে।

WhatsApp Chat