অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের সহজ নিয়ম

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের সহজ নিয়ম

images

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে মোট ৪২১২ টাকা অনলাইনে জমাদিতে হবে। তবে ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে ০১ (এক) দিন থেকে ০১ (এক) বছর পর্যন্ত মেয়াদ উত্তীর্ণের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত জরিমানা হবে ৫১৮/- টাকা।


আমরা যারা প্রতিদিন মোটরযান ড্রাইভিং করি  তাদের জন্য ড্রাইভিং লাইসেন্স একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয়। একজন আদর্শ চালকের গাড়ি চালানোর পূর্ব শর্ত হলো অবশ্যই তার বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকতে হবে। বাংলাদেশ সরকারের নতুন সড়ক পরিবহন আইন অনুয়াযী কর্তৃপক্ষ ব্যতীত ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রস্তুত, প্রদান বা নবায়নে বিধি-নিষেধ সংক্রান্ত ধারা ১০ এর বিধান অনুয়াযী উক্ত ব্যক্তির অনধিক ০২ বছর জেল নূন্যতম ১ লক্ষ্য টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হতে পারে।

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মেয়াদ ১০ বছর অর্থ্যাৎ মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্বে আপনাকে অনলাইনে রিনিউ/নবায়ন এর জন্য আবেদন করতে হবে। তবে বর্তমানে আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্সটি নবায়ন করার জন্য আপনাকে আর বিআরটিএ তে গিয়ে কোন কাগজপত্র জমা দিতে হবে না এবং ফিঙ্গার প্রিন্ট ও করতে হবেনা ।অনলাইনে ড্রাইবিং লাইসেন্স নবায়ন করলে আপনাকে আর বিআরটিএ-তে গিয়ে স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে হবে আনলাইনে আপনার প্রদত্ত ঠিকানা অনুযায়ী ডাকযোগে বিআরটিএ আপনার ঘরে স্মাট কার্ড পৈীচ্ছে দিবে। এতে ঝামেলা যেমন কমেছে তেমন কমেছে সময়ের অপচয়। আসুন অনলাইনে নবায়ন আবেদন প্রক্রিয়াটি  আপনি ঘরে বসে কিভাবে করবেন সেটা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের আবেদন প্রক্রিয়া ২০২৪

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের জন্য প্রথমেই আপনার বিআরটিএ সেবা বাতায়নে (BSP) নিবন্ধন বা অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। কিভাবে বিআরটিএ (BRTA) সেবা বাতায়ন বা সার্ভিস পোর্টালে অ্যাকাউন্ট খুলবেন ও হালনাগাদ করবেন তা জানতে ক্লিক করুন: বিআরটিএ সার্ভিস পোর্টালে নিবন্ধন করার প্রক্রিয়া

বিআরটিএ (BRTA) সার্ভিস পোর্টালে ইউজার (মোবাইল নাম্বার) ও  পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করতে হবে। এরপর প্রোফাইল হালনাগাদ করে নিতে হবে।

হালনাগাদ করার পর পোর্টাল এর বাম পাশে  ড্রাইভিং লাইসেন্স অপসন এ ক্লিক করতে হবে। এখানে বেশ কিছু অপশন রয়েছে। তবে লাইসেন্স নবায়নের জন্য আপনাকে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন অপশনে ক্লিক করতে হবে।এরপরের পেইজে আপনাকে ড্রাইভিং লাইসেন্সের রেফারেন্স নাম্বার বসিয়ে অনুসন্ধান অপশনে ক্লিক করতে হবে। 

তারপর ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের অনলাইন ফরমটি আসবে। এ ফরমটিতে দুইটি ভাগে (সেকশন-এ ও সেকশন-বি) বিভক্ত থাকবে।

সেকশন-এ তে করনীয়

এ পেইজে আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স নাম্বার সহ সকল তথ্য প্রদর্শন করবে। এর বাইরেও এই অংশে আপনাকে কিছু তথ্য সংযুক্ত করতে হবে যেমন আপনার পেশা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি। 
এ পর্যায়ে যে বিষয়টি লক্ষ্য রাখতে হবে তা হল- আমরা শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স করি, নবায়নের সময় সে শিক্ষাগত যোগ্যতা বৃদ্ধি পেলে তা অবশ্যই সংশোধন করে নিতে হবে। অন্যথায় পূর্বের শিক্ষাগত যোগ্যতাই নতুন লাইসেন্সে সংরক্ষিত থাকবে।  

আরও পড়ুন:
☞  লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন প্রক্রিয়া
☞  অনলাইনে স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স এর আবেদন ও প্রাপ্তির প্রক্রিয়া
☞  ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার সম্ভাব্য প্রশ্ন ও সমাধান

সেকশন-বি তে করনীয়

সেকশন-বি অংশের শুরুতেই আপনাকে ভোটার আইডি কার্ড ও বিদ্যমান ড্রাইভিং লাইসেন্সের উভয় পার্শ্বের স্ক্যান কপি আপলোড করতে হবে। স্ক্যানকৃত ফাইলের সাইজ সর্বোচ্চ ৬০০ কেবির কম হতে হবে।

এরপর স্মার্ট কার্ড ডাকযোগে প্রাপ্তির অপশন আসবে। এই অপশনে বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা যুক্ত করতে হবে। আবার আপনি যদি অন্য কোন ঠিকানায় ডাকযোগে কুরিয়ার নিতে চান তাহলে আদারস (Others) অপশনটি তে ক্লিক করে তথ্য দিতে হবে।

এখানে আপনার স্মার্ট কার্ড প্রাপ্তির ঠিকানা– হোল্ডিং নাম্বার, গ্রাম/পাড়া মহল্লা, মোবাইল নাম্বার, থানা, জেলা ও পোস্ট কোড উল্লেখ্য করে সংরক্ষণ অপশনে ক্লিক করলেই ড্রাইভিং লাইসেন্স রিনিউ অ্যাপ্লিকেশন এর সাবমিট পেইজটি চলে আসবে।

এই পেইজে আপনার আবেদনের বিস্তারিত তথ্যসমূহ প্রদর্শন করবে। এরপর নিচে স্কল করে অনলাইন ফি জমা অপসনে ক্লিক করে ইন্টারনেট অথবা মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ফ্রি জমা দিতে হবে।

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স রিনিউ ফি সমূহ হলো– 

  • মূল ফি বাবদ ৩০০০ টাকা, 
  • কার্ড ফি ৬১০ টাকা, 
  • ভ্যাট বাবদ ৫৪২ টাকা,
  • ডেলিভারী ফি বাবদ ৬০ টাকা,
  • মোট ৪২১২ টাকা।

অর্থাৎ অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে মোট ৪২১২ টাকা অনলাইনে জমাদিতে হবে। তবে ড্রাইভিং লাইসেন্স যদি মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায় তাহলে জরিমানা প্রদান করতে হবে। ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে ০১ (এক) দিন থেকে ০১ (এক) বছর পর্যন্ত মেয়াদ উত্তীর্ণের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত জরিমানা হবে ৫১৮/- টাকা।

সেক্ষেত্রে লাইসেন্স নবায়ন ফি জমা দেয়ার সময় জরিমানা যুক্ত হয়ে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মোট ফি চলে আসবে। বিকাশ, নগদ, রকেট, এবং ব্যাংক ডেবিট/ক্রেডিট, ভিসা ও মাস্টার কার্ডের মাধ্যমে ফি জমা দেওয়ার সাথে সাথেই মানি রিসিট দেখতে পারবেন।  

সফলভাবে এই প্রক্রিয়াগুলো শেষ করার ৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যে একটি ই-পেপার ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়া হবে। ই-ড্রইভিং লাইসেন্সটি আপনি আপনার বিএসপি পোর্টাল থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

আপনার স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ডটি হাতে পাওয়ার আগ পর্যন্ত এই ই-পেপার লাইসেন্স দিয়ে গাড়ি ড্রাইভ করতে পারবেন। বর্তমানে ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ ১ থেকে ২ মাসের মধ্যে স্মার্ট কার্ডটি প্রিন্ট করে ডাকযোগে গ্রাহকের ঠিকানায় পৌঁছে দিচ্ছে।

Get in touch with us to know more.

Contact Us